নবী (সাঃ) যেভাবে হজ করেছেন পর্ব – ৪

0
347
প্রবন্ধটি পড়া হলে, শেয়ার করতে ভুলবেন না
রহমান রহীম আল্লাহ্‌ তায়ালার নামে-

সংকলনঃ শাইখ মুহাম্মাদ নাসেরুদ্দীন আল-আলবানী (রহ)অনুবাদঃ মুফতী নুমান আবুল বাশার, ড. এটিএম ফখরুদ্দীন

পর্ব- ১ | পর্ব- ২ | পর্ব- ৩ | পর্ব- ৪ | পর্ব- ৫ 

আরাফা থেকে প্রস্থান

অতপর রাসূলুল্লাহ ﷺ মুযদালিফার দিকে রওয়ানা হলেন। ‘আর তিনি ছিলেন শান্ত-সুস্থির।’ [92] তিনি কাসওয়া নামক উষ্ট্রীর লাগাম শক্তভাবে টেনে ধরলেন, এমনকি উষ্ট্রীর মাথা তাঁর হাওদার সাথে ছুঁয়ে যাচ্ছিল। আর তিনি তাঁর ডান হাত দিয়ে ইশারা করে বললেন, ‘হে লোকসকল! শান্ত হও শান্ত হও, ধীর-স্থিরভাবে এগিয়ে চল’। যখনই তিনি কোন বালুর টিলায় পৌঁছছিলেন, তখনই তা অতিক্রম করার সুবিধার্থে উষ্ট্রীর রশি ঢিলা করে দিচ্ছিলেন। এমনিভাবে তাতে উঠে তা অতিক্রম করছিলেন।

মুযদালিফায় একসাথে দুই সালাত আদায় এবং সেখানে রাত্রি যাপন

এভাবে তিনি মুযদালিফায় এলেন। অতপর এক আযান ও দুই ইকামতসহ মাগরিব ও ইশার সালাত একসাথে আদায় করলেন এবং এ দুই সালাতের মাঝখানে তিনি কোন তাসবীহ বা নফল সালাত আদায় করলেন না। এরপর রাসূলুল্লাহ ﷺ শুয়ে পড়লেন। এভাবেই সুবহে সাদেক উদিত হল। ফজরের সময় সুস্পষ্ট হওয়ার পর ( আওয়াল ওয়াক্তে ) আযান ও ইকামতের পর ফজরের সালাত আদায় করলেন।

মাশআরে হারাম তথা মুযদালিফায় অবস্থান

অতপর তিনি কাসওয়ায় আরোহন করে মাশ‘আরে হারামে এলেন। [93] অতপর তিনি তাতে আরোহন করলেন।’ [94] এরপর তিনি কিবলামুখী হয়ে আল্লাহর কাছে দু‘আ করলেন। ‘অতপর আল্লাহর প্রশংসা করলেন।’ [95] তাঁর মহত্ব, শ্রেষ্ঠত্ব ও একত্ববাদের ঘোষণা দিলেন। পূর্ব আকাশ পূর্ণ ফর্সা হওয়া পর্যন্ত তিনি সেখানে উকূফ করলেন। তিনি বললেন, ‘আমি এখানে উকূফ করেছি; তবে মুযদালিফার পুরোটাই উকূফের স্থান।’ [96]

জামরায় কঙ্কর নিক্ষেপের উদ্দেশ্যে মুযদালিফা থেকে রওয়ানা

অতপর তিনি সূর্য উঠার পূর্বেই ‘মুযদালিফা’ [97] থেকে মিনার দিকে রওয়ানা হলেন। [98] ‘আর তিনি ছিলেন শান্ত ও সুস্থির।[99] ’তিনি ফযল ইবন আববাস রা কে নিজের উটনীর পেছনে বসালেন। [100] আর তিনি ছিলেন সুন্দর চুল ও উজ্জ্বল ফর্সা চেহারার অধিকারী। রাসুলূল্লাহ ﷺ যখন মিনার দিকে রওয়ানা হলেন। তখন তাঁর কাছ দিয়ে কতিপয় মহিলা চলতে লাগল, আর ফযল তাদের দিকে তাকাতেন লাগলেন, রাসূলুল্লাহ ﷺ তাঁর হাত ফযলের চেহারায় রাখলেন। তখন ফযল তার চেহারা অন্য দিকে ফিরিয়ে নিলেন। এরপর রাসূলুল্লাহ ﷺ তাঁর হাত অন্য দিক থেকে সরিয়ে ফযলের চেহারার ওপর আবার রেখে যেদিকে তিনি তাকাচ্ছিলেন সেদিক থেকে তার চেহারা ঘুরিয়ে দিলেন। অবশেষে তিনি মুহাস্সার উপত্যকার মধ্যস্থলে [101] পৌঁছলে উটের গতি কিছুটা বাড়িয়ে দিলেন এবং বললেন, তোমরা শান্ত ও সুস্থিরভাবে চল। [102]

বড় জামরায় কঙ্কর নিক্ষেপ

তারপর তিনি মাঝপথ ধরে চলতে লাগলেন [103], যা বড় জামরার কাছ দিয়ে বের হয়ে গেছে।’ [104] অবশেষে তিনি গাছের সন্নিকটে অবস্থিত জামরায় এসে পৌঁছলেন।অতপর ‘সূর্য পূর্ণ আলোকিত হওয়ার পর’ [105] তিনি বড় জামরাতে সাতটি কঙ্কর নিক্ষেপ করলেন। প্রতিটি কঙ্কর নিক্ষেপের সময় ‘আল্লাহু আকবার’ বললেন। প্রত্যেকটি কঙ্কর ছিল বুটের ন্যায়।[106] তিনি তাঁর বাহনে আরোহন অবস্থায় উপত্যকার মধ্যভাগ থেকে কঙ্কর নিক্ষেপ করেন ‘আর তিনি’ [107] বলছিলেন, তোমরা তোমাদের হজের বিধি-বিধান শিখে নাও। কারণ আমি জানি না, হয়ত আমি এই হজের পরে আর হজ করতে পারব না।[108]

জাবের রা. বলেন, রাসূলুল্লাহ ﷺ ‘তাশরীকের সব দিনেই’ [109] ‘সূর্য হেলে যাওয়ার পরে’ [110] কঙ্কর নিক্ষেপ করলেন। [111] তিনি আকাবা তথা বড় জামরাতে কঙ্কর নিক্ষেপকালে সুরাকা তাঁর সাথে সাক্ষাত করলেন। অতপর বললেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ, এটা কি খাস করে আমাদের জন্য ? তিনি বললেন, না, বরং সবসময়ের জন্য।[112]

পশু যবেহ ও মাথা মুন্ডন

অতপর তিনি পশু যবেহের স্থানে গেলেন। তারপর নিজ হাতে তেষট্টিটি ‘উট’ [113] যবেহ করলেন।অতপর আলী রা. কে অবশিষ্টগুলো যবেহ করার দায়িত্ব দিলেন  তিনি তাকে নিজের হাদীতে শরীক রাখলেন। এরপর প্রত্যেক যবেহকৃত উট থেকে এক টুকরো করে নিয়ে রান্না করতে নির্দেশ দিলেন। তখন টুকরোগুলো এক পাতিলে রেখে রান্না করা হল। অতপর দুজনে তার শুরবা পান করলেন। [114] এক বর্ণনায় রয়েছে, ‘জাবের রা. বলেন, রাসুলুল্লাহ ﷺ নিজের স্ত্রীদের পক্ষ থেকে একটি গাভি যবেহ করেন।’ [115] অন্য বর্ণনায় এসেছে, ‘তিনি সাত জনের পক্ষ থেকে একটি উট যবেহ করেন। আর সাতজনের পক্ষ থেকে একটি গাভি যবেহ করেন।’[116] ‘অতপর আমরা সাতজন উটে শরীক হলাম। এক লোক রাসূলুল্লাহ ﷺ কে বলল, আপনি কি মনে করেন, গাভিতেও শরীক হওয়া যাবে? তখন তিনি বললেন, গাভিতো উটের (বিধানের) অন্তর্ভুক্ত। [117]

জাবের রা. বলেন, আমরা মিনায় তিনদিন উটের গোশত খেয়ে তারপর খাওয়া থেকে বিরত রইলাম। [118] অতপর রাসূলুল্লাহ ﷺ আমাদেরকে অনুমতি দিয়ে বললেন, তোমরা খাও এবং পাথেয় হিসেবে রেখে দাও।’ [119] 

‘জাবের রা. বলেন, অতপর আমরা খেলাম এবং জমা করে রাখলাম।’ [120] ‘এভাবে সেগুলো নিয়ে আমরা মদীনায় পৌঁছলাম।[121]

পর্ব- ১ | পর্ব- ২ | পর্ব- ৩ | পর্ব- ৪ | পর্ব- ৫ 

চলবে……………

Source: IslamHouse.Com

……………………………………………………………………………………………..


[92] আবূ দাউদ, নাসাঈ।
[93] মাশআরে হারাম দ্বারা উদ্দেশ্য ‘কুযাহ’ নামক স্থান। এটি মুযদালিফার একটি প্রসিদ্ধ পাহাড়। সকল সীরাতবিদ ও মুফাসসিরের মতে, সমগ্র মুযদালিফাকেই মাশআরে হারাম বলে। ইমাম নাববী রহ.।
[94] আবূ দাউদ।
[95] আবূ দাউদ।
[96] নাসাঈ।
[97] বাইহাকী।
[98] সূর্যোদয়ের পূর্বে মুযদালিফা থেকে প্রস্থান মুশরিকদের নিয়মের বিপরীত করার লক্ষ্যেই ছিল, কেননা মুশরিকরা মুযদালিফা ত্যাগ করতো সূর্যোদয়ের পর। রাসূল ﷺ বলেছেন, ‘আমাদের আদর্শ ওদের থেকে ভিন্ন।’
[99] আবূ দাউদ।
[100] এ হাদীস এবং পূর্বে বর্ণিত ৫৬ নং হাদীস থেকে বুঝা যায় বাহনের পেছনে কাউকে নিতে কোনো অসুবিধা নেই।
[101] এই স্থানে আবরাহার হস্তি বাহিনীকে আল্লাহ তা‘আলা ধ্বংস করে দিয়েছিলেন। ইবনুল-কায়্যিম রহ. বলেন, মুহাস্সার মিনা ও মুযদালিফার মাঝখানে অবস্থিত। এটা মিনা বা মুযদালিফার অন্তর্ভুক্ত নয়।
[102] দারেমী।
[103] ইমাম নাববী রহ. বলেন, এ থেকে জানা গেল, আরাফা থেকে ফেরার সময় এ পথে আসা অর্থাৎ এক পথ দিয়ে যাওয়া এবং আরেক পথ দিয়ে ফেরা সুন্নত।
[104] নাসাঈ, আবূ দাউদ।
[105] মুসনাদে আহমদ, মুসলিম, আবূ দাউদ।
[106] ইমাম নাববী রহ. বলেন, পাথরগুলো ছিল শিমের বিচির মতো। সুতরাং এরচেয়ে বড় বা ছোট না হওয়া সুন্নত। তবে এরচেয়ে ছোট বা বড় হলেও তা জায়িজ হবে।
[107] নাসাঈ।
[108] মুসলিম, আবূ দাউদ, নাসাঈ।
[109] মুসনাদে আহমদ।
[110] মুসলিম।
[111] যিলহজ মাসের ১১-১২-১৩ তারিখের দিনগুলোকে আইয়্যামে তাশরীক বলা হয়।
[112] বুখারী , মুসলিম।
[113] ইবন মাজা।
[114] এ থেকে জানা গেল, নফল বা ওয়াজিব কুরবানীর গোশত কুরবানীকারী নিজে খেতে করতে পারবেন।
[115] মুসলিম।
[116] মুসলিম।
[117] বুখারী ফিত-তারীখ।
[118] মুশরিকরা তাদের যবেহকৃত হাদীর গোশত ভক্ষণ করত না। তারা নিজদের জন্য তা হারাম মনে করত। মহান আল্লাহ ও তাঁর রাসূল তা খাওয়ার নির্দেশ প্রদানের মাধ্যমে জাহেলী যুগের কুপ্রথার বিলুপ্তি ঘটান।
[119] মুসনাদে আহমদ।
[120] বুখারী, মুসনাদে আহমদ।
[121] মুসনাদে আহমদ।

Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here