কিছু প্রশ্ন? উত্তর আছে আপনার কাছে?

18
3674
প্রবন্ধটি পড়া হলে, শেয়ার করতে ভুলবেন না
রহমান রহীম আল্লাহ্‌ তায়ালার নামে-

লিখেছেনঃ সাইফ

নিজেকে করার কিছু প্রশ্ন , যদি পারেন তো জবাব দিন , না পারলে আল্লাহর দিকে ফিরে আসুনঃ

(১) আপনি শুধু জুমআ’র নামাজই পড়েন কেন? আপনাকে কি আল্লাহ্‌ শুধু জুমার দিনেই আলো, বাতাস, পানি খাবার দিয়ে থাকেন? শনিবার দেন না? রবি, সোম, মঙ্গল সব দিনই তো দেন, সবদিন পরিপূর্ণ আল্লাহর নেয়মত ভোগ করেন, কিন্তু আল্লাহ্‌কে শুধু একদিনই স্মরণ করেন। এবার বলুন আপনি কি ঠিক পথে আছেন? এটা কি স্পষ্টত অপরাধ নয়? জবাব দিন , না হলে ফিরে আসুন।

(২) আপনি কি মনে করেন ইসলাম শুধু মসজিদ , মাদ্রাসায় , ইমাম, আলেমদের মধ্যে সীমাবদ্ধ? সবার জন্য জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই কি ইসলাম নয়? তাহলে আমাদের প্রিয় নবীর জীবনের প্রতিটি অংশই কেন ইসলাম জড়িত, কিংবা সাহাবীরা/৪ খলিফা কেনইবা ইসলামিক জীবন যাপন করেছেন? এবার নিজেকে প্রশ্ন করুন, আপনি কি নিজেকেই ধোঁকা দিচ্ছেন না? জবাব দিন, না হলে ফিরে আসুন।

(৩) আপনি জানেন নামাজ পড়া ফরজ, আপনি এও জানেন নামাজ না পড়লে জাহান্নামে  যেতে হবে, আপনার এটাও জানা আছে যে জাহান্নাম অত্যন্ত ভয়াবহ, দুনিয়ার কোন শাস্তিই জাহান্নামের ধারে কাছেও নেই, তবু কেন আপনি পড়ছেন না? আপনি কি জেনে বুঝে নিকৃষ্ট জায়গায় , ভয়াবহ শাস্তির জায়গায় ইচ্ছাকৃতভাবে নিজেকে নিয়ে যাচ্ছেন না? কেউ যদি জেনে বুঝে শাস্তি পেতে চায়, অথচ সে ইচ্ছা করলে শাস্তির বদলে চির সুখের স্থান পেতে পারে তাকে আপনি কি বলবেন ? চরম দুর্ভাগা বলবেন না? জবাব দিন , না হলে ফিরে আসুন।

(৪) আপনি তো জানেন জান্নাতে আরাম আয়েশের অভাব নেই। ইচ্ছা মত ভাল ভাল খাবার, পরমা সুন্দরী জান্নাতি হুর, যা যা ইছে করে সব পাওয়া যাবে জান্নাতে গেলে। দুনিয়ায় মানুষ কদিন বাঁচে? ৮০/১০০ বছর?আর আখিরাতের জীবন তো অনন্ত অসীম। আপনি এই ৮০-১০০ বছর আরামে কাটিয়ে দিতে চান আর অনন্ত জীবন ছেড়ে দিতে চান? এর থেকে বোকামি আর কি হতে পারে?

(৫) আপনি সবই মানেন সবই বোঝেন, কিন্তু অলসতা কিংবা ইচ্ছাকৃতভাবে  পালন করেন না, কি করে আশা করেন জান্নাত পাওয়ার। অনেকে বলেন ভাই আমি তো জাহান্নামী, তাদেরকে বলতে ইচ্ছে করে ভাই জাহান্নামকে আপনি কি মনে করেন? সাধারন জেলখানা ? তাহলে শুনুন

নু’মান ইবনে বাশীর রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছিঃ “কেয়ামতের দিন জাহান্নামীদের মধ্যে সবচাইতে লঘু শাস্তি প্রাপ্ত ব্যক্তির শাস্তি হবে এই যে, তার দুই পায়ের তালুর নিচে আগুনের দু’টি অংগার রাখা হবে এবং তাতে তার মস্তিষ্ক সিদ্ধ হতে থাকবে। সে মনে করবে, তার চাইতে কঠিন শাস্তির মুখোমুখি আর কেউ হয়নি। অথচ সে-ই জাহান্নামীদের মধ্যে সবচাইতে হালকা শাস্তিপ্রাপ্ত।” [বুখারী: ৬৫৬২, মুসলিম: ২১৩]

জবাব দিন, নাহলে ফিরে আসুন। যারা ফিরে আসবে এই মুহূর্ত থেকে তাদের জন্য আল্লাহ্‌ সুসংবাদ দিয়েছেন, “আর যারা খারাপ কাজ করে, তারপরে তওবা করে নেয় এবং ঈমান নিয়ে আসে, তবে নিশ্চয়ই তোমার রব এরপরও ক্ষমাশীল,পরম দয়ালু।” [সূরা আ’রাফ: ১৫৩]

তারা কি দেখে না,তারা প্রতি বছর একবার কিংবা দুবার বিপদগ্রস্ত হয়?  এরপরও তারা  তওবা করে না এবং উপদেশ গ্রহণ করে না।” [সূরা তাওবা: ১২৬]

সুতরাং তারা কি আল্লাহর নিকট তওবা করবে না? এবং তার নিকট ক্ষমা চাইবে না? আর আল্লাহ  ক্ষমাশীল,পরম দয়ালু।” [সূরা মায়েদা: ৭৪]

যারা ভাবে এখন পাপ করি পরে সময়মত তওবা করে নেব, তাদের সাধারণতঃ কোনদিনই তওবা করার সৌভাগ্য পাবে না।আল্লাহ্‌ বলেন: “আর এমন লোকদের জন্য কোন ক্ষমা নেই, যারা মন্দ কাজ করতেই থাকে, এমন কি যখন তাদের কারো মাথার উপর মৃত্যু উপস্থিত হয়, তখন বলতে থাকেঃ আমি এখন তওবা করছি। আর তওবা নেই তাদের জন্য, যারা কুফরী অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে। আমি তাদের জন্য যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি প্রস্তুত করে রেখেছি।” [সূরা নিসা: ১৮]

তাই আমার ভাই ও বোনেরা ফিরে আসুন , এখনই, এখনই এবং এখনই। তওবা করে ফিরে আসুন। আল্লাহর কাছে নিজেকে আত্মসমর্পণ করুন।

Print Friendly, PDF & Email


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

18 মন্তব্য

  1. ভাই…পরমা সুন্দরী জান্নাতি হুর….এই কথাটা শুধু পুরুষদেরকে উদ্দেশ্য করে বলা হয়ে গেল না? কেননা হুর তো আল্লাহ্ তায়ালা নারী এবং পুরুষ উভয়ের সঙ্গী হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

  2. মন্তব্য:আসসালামু আলাইকুম……..
    স্যার, আমার একটা প্রশ্ন আছে…. প্রশ্নটা হলো…. আমার এক ফ্রেন্ড ( আমরা পাশাপাশি এলাকায় থাকি) সে ২ বছর আগে তার এলাকার কিছু বাজে ছেলেদের সাথে মিশে এবং তাদের সাথে বিভিন্ন খারাপ কাজ করে তার মধ্যে কিছু হলো,… সে অন্যের ঘর থেকে রাতে টিভি, ফোন, তার পর রাতের আধারে কারেন্টের তার… এমনকি অনেক দোকান থেকে মোবাইল ও চুরি করেছে… এবং অন্যের মুরগী ও চুরি করেছে অনেকগুলো আর শেষ একটা চুরি সে করেছে একটা সেলুন থেকে এক কর্মচারীর মোবাইল।। কিন্তু যখন সে চুরি গুলো করেছে তখন সে অতটা বুজেনাই,,, খারাপ বন্ধুদের পাল্লায় পড়ে এসব করেছে কিন্তু কিছুদিন যাবৎ সে খুবই চিন্তিত তার কর্মকান্ডের জন্য অবশ্য সে এখন ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে এবং ওইসব খারাপ কাজের জন্য অনুতপ্ত….. এখন সে শুধু বলে আল্লহ বুজি তাকে কখোনো মাফ করবেনা….. আর শুধু কান্না করে…..

    এখন প্রশ্ন হলো : সে এমত অবস্থায় কি করবে…. সে কি চুরি করা জিনিস গুলো ফিরিয়ে দিবে..??? কিন্তু যদী ফিরিয়ে দিতে চায় তাহলে আরো বড় ধরনের দূর্ঘটনা হতে পারে…. তাহলে সে কি এগুলো মসজিদে দান করে দিবে এবং এখন সে একজন স্টুডেন্ট তার পক্ষে এতোগুলার সমমূল্য পরিশোধ করা তার পক্ষে সম্ভব না…. তাহলে এখন সে কি করবে????

    এবং সে তার চুরি করা একটা ফোন এখোনো ব্যাবহার করতেছে… এটা সে কি করবে…..???

    প্লিজ বিস্তারিত জানাবেন…..

  3. বিদেশে গিয়ে মৃত্যু হলে করনীয় কি? লাশ নিজ দেশে নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা কতটুকু ? ইসলামে এই বিষয়ে কি বলা হয়েছে?

  4. Shuvo,
    Jazzak Allah Khair…apnar bodhu je obosheshe bhujte pereche je she onek grihitho kaj koreche, abong oboshoi she Allah SWT er kache tauba koreche je ei shob grihito kaj ar kono din korbe na…Masha Allah …Allah SWT jeno tar tawba kobul koren. ekhon proshno hoche je apnar bodhu jader haq noshto koreche tader kache tader churi hoi jawa mala mal gulo firiye dite parbe na……shei khetre ei kaj gulo korte pare:
    1. Je Kono bhabe shei shob family ke taka poisha diye shahajjo kora.
    2. Tader name shomo mulloer (churi kora jinisher) taka daan sadqa kora
    3. Tader mongol kamon acheye Allah SWT er dorgai tader jonne duwa kora
    May Allah SWT forgive all of us…Ameen

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here