বই – ইত্তিবায়ে সুন্নাতের মাসায়েল

4
Print Friendly

প্রবন্ধটি পড়া হলে, শেয়ার করতে ভুলবেন না

রহমান রহীম আল্লাহ্‌ তায়ালার নামে-

সৌদি আরব, রিয়াদে বিশিষ্ট ব্যক্তি জনাব মুহাম্মদ ইকবাল কিলানী সাহেব কুরআন ও সহীহ হাদিসসমূহের আলোকে ‘কিতাবু ইত্তিবায়িস সুন্নাহ’ নামে একটি প্রামান্য গ্রন্থ রচনা করেছেন। ইনশাআল্লাহ হাদিস ও সুন্নাহ বিষয়ে এই পুস্তিকাটি শিক্ষার্থি ও সাধারণ মানুষের জন্য সমানভাবে উপকারি ও সহায়ক হবে বলে দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস রেখে ‘কিতাবু ইত্তিবায়িস সুন্নাহ’ বাংলা ভাষায় অনুদিত হল।

এতে আলোচিত হয়েছে:

  • সুন্নাহর পরিচয়,
  • কুরআনের দৃষ্টিতে সুন্নাহ,
  • সুন্নাহর ফযীলত ও গুরুত্ত,
  • সুন্নাহর মর্যাদা,
  • সুন্নাহর পরিবর্তে মানুষের মতামতের স্থান,
  • কুরআন বুঝার জন্য সুন্নাহর প্রয়োজনীয়তা,
  • সুন্নাহ মতে আমলের অপরিহার্যতা,
  • সাহাবীদের দৃষ্টিতে সুন্নাহ
  • ইমামের দৃষ্টিতে সুন্নাহ
  • বিদাতের পরিচয় এবং বিদাতের নিন্দা
  • বিদাত প্রচারের কারণ
  • হাদিস অস্বীকারের ফিতনা

এছারাও হাদিস অস্বীকারকারীদের অভিযোগ খন্ডন করে সংক্ষিপ্তাকারে অতি সুন্দর ভাবে হাদিস সংকলনের ইতিহাসও বর্নিত হয়েছে। এছাড়াও জাল ও দুর্বল হাদিস নিয়ে দ্বিধাদন্দ্বের জন্য জাল ও দুর্বল হাদিস নামে পরিশিষ্ট যোগ হয়েছে। সব মিলে বাংলা ভাষাভাষী পাঠক পাঠিকাগণ এই পুস্তিকার মাধ্যমে হাদিস ও সুন্নাহের গুরুত্ত ও মর্যাদা, হাদিস সংকনের ইতিহাস, সুন্নাহের অনুসরণের আবশ্যকীয়তা, এবং বিদাতের অপকারিতা ও বিদাত থেকে বেঁচে থাকার গুরুত্ত ইত্যাদি সম্পর্কে সঠিক নির্দেশনা পেতে সক্ষম হবেন।

This book contain Interactive Link. Interactive link means CONTENTS pages are linked with their appropriate pages, and vise-versa. So, when the user clicks a topic from the CONTENTS page, it will automatically direct to the relevant page. Similarly, when the user wants to go back to the CONTENTS page, he/she can click the TOPIC HEADING, which will automatically redirect to the CONTENTS page.


ইত্তিবায়ে সুন্নাতের মাসায়েল – QA Server

ইত্তিবায়ে সুন্নাতের মাসায়েল – Mediafire

ইত্তিবায়ে সুন্নাতের মাসায়েল – 4 Shared


'আপনিও হোন ইসলামের প্রচারক'
প্রবন্ধের লেখা অপরিবর্তন রেখে এবং উৎস উল্লেখ্য করে
আপনি Facebook, Twitter, ব্লগ, আপনার বন্ধুদের Email Address সহ অন্য Social Networking ওয়েবসাইটে শেয়ার করতে পারেন, মানবতার মুক্তির লক্ষ্যে ইসলামের আলো ছড়িয়ে দিন। "কেউ হেদায়েতের দিকে আহবান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরণ করেছে তাদের সওয়াবে কোন কমতি হবেনা" [সহীহ্ মুসলিম: ২৬৭৪]

পাঠকের মন্তব্য

Loading Facebook Comments ...

4 মন্তব্য

  1. Add min amar akta prosno ase, Akjon rojader loker somne anno akjon rojadar lok jodi kiso khabar kai tokhon oi rojader lok ki je lok kasse take nished korte parbe? kinto ami jantam je nished kora jabe tobe akjon biggo loker kas theke sonlam jabena.ami ar bakkha jante sai.

  2. Add min amar akta prosno.LA ILAHA ILLAL LAHO MOHAMADOR RASOLOLLAH.Ihake amra kalema tieba boli.kinto kalema tiebar songa to sodo allahor kotha tahkbe, ihate to rasol (sm) ar kotha ase tahole kivbe ata kalema tieba bakkha sai please.

  3. Shaykh al-Islam Ibn Taymiyah was asked in al-Fataawa al-Kubra (2/228): Does the common Eid greeting that is on people’s lips – “Eid Mubaarak” etc – have any basis in sharee’ah or not? If there is a basis for that in sharee’ah, what should we say? 

    He replied: 

    With regard to the greeting on the day of Eid, which people say to one another when meeting after the prayer, “Taqabbal Allaahu minna wa minkum wa ahaalahu Allaah ‘alayka (May Allaah accept (this worship) from us and from you and may you live to see another Eid)” etc, this was narrated from a number of the Sahaabah who used to do that and allow others to do so too, and from the Imams such as Imam Ahmad.
     But Ahmad said: I do not initiate this greeting with anyone. But if someone greets me in this manner I return his greeting. That is because returning a greeting is obligatory, but initiating this greeting is not a Sunnah that is enjoined, but neither is it forbidden. The one who does it has an example and the one who does not do it also has an example. And Allaah knows best. Shaykh Ibn ‘Uthaymeen was asked: What is the ruling on offering Eid greetings and is there a particular wording to be used? He replied: It is permissible to offer greetings and congratulations on Eid, and there is no specific greeting. Rather the greetings that people customarily use are permissible so long as no sin is involved. He also said: Some of the Sahaabah offered greetings and congratulations on the occasion of Eid. Even if we assume that they did not do that, it has now become something customary that people are used to doing, congratulating one another on the occasion of Eid and on completing the fast and qiyaam. And he was asked: what is the ruling on shaking hands, embracing and congratulating one another after the Eid prayer? He replied: There is nothing wrong with these things, because people do not do these things as acts of worship intended to draw them closer to Allaah, rather they do them because they are customary, and to honour and show respect to one another. So long as there is nothing in sharee’ah to indicate that a custom is forbidden, then the basic principle is that it is permissible. Majmoo’ Fataawa Ibn ‘Uthaymeen, 16/208-210

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here